English [en]   العربية [ar]   Azərbaycanca [az]   български [bg]   বাংলা [bn]   català [ca]   čeština [cs]   dansk [da]   Deutsch [de]   ελληνικά [el]   español [es]   فارسی [fa]   français [fr]   hrvatski [hr]   magyar [hu]   Bahasa Indonesia [id]   italiano [it]   日本語 [ja]   한국어 [ko]   lietuvių [lt]   മലയാളം [ml]   Nederlands [nl]   polski [pl]   português do Brasil [pt-br]   română [ro]   русский [ru]   தமிழ் [ta]   Türkçe [tr]   українська [uk]   繁體中文 [zh-tw]  

This translation may not reflect the changes made since 2009-09-05 in the English original. Please see the Translations README for information on maintaining translations of this article.

কেন সফটওয়ারের মালিক থাকা উচিত্‍ নয়

রিচার্ড স্টলম্যান

ডিজিটাল তথ্যপ্রযুক্তি আজ আমাদের সহজে তথ্য কপি ও পরিবর্তন করার সুযোগ দিচ্ছে। কম্পিউটার একে আরো সহজতর করেছে।

তবে সবাই এই প্রক্রিয়াটিকে সহজতর করতে চায় না। কপিরাইট প্রথাটি সফটওয়ার প্রোগ্রামকে একটি মালিকানাধীন বস্তুতে পরিণত করেছে। আমাদের ব্যবহৃত সফটওয়ারগুলো কপি ও পরিবর্তন করার ক্ষমতা অধিকাংশ সফটওয়ার নির্মাতা শুধুমাত্র নিজেদের জন্য সংরক্ষিত রেখে সফটওয়ারগুলোর অসংখ্য সুবিধা থেকে আমাদেরকে বঞ্চিত করতে চায়।

কপিরাইট ব্যবস্থাটি গড়ে উঠেছিল মুদ্রণ ব্যবস্থার সাথে। মুদ্রণ প্রযুক্তিতে যন্ত্রের সাহায্যে বিপুল পরিমাণ তথ্য ছাপানো সম্ভব হচ্ছে। কপিরাইট ব্যবস্থাটি এখানে যুক্তিসঙ্গত। কারণ এটি শুধু [প্রকাশক ব্যতীত] অপর কোন প্রকাশনা সংস্থাকে নির্দিষ্ট কোন তথ্য ছাপানো থেকে বিরত রাখে। কিন্তু কোনভাবেই এটি পাঠকের স্বাধীনতা হরণ করে না। এ জন্য সাধারণ পাঠক যার মুদ্রণযন্ত্র নেই, সে শুধু কাগজ-কলম দিয়েই প্রতিলিপি তৈরি করতে পারে; আর এ ধরনের কাজের জন্য কোন ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করা হয় নি বললেই চলে।

ডিজিটাল প্রযুক্তি মুদ্রণ ব্যবস্থার তুলনায় অনেক বেশি সুবিধাজনক। যখন কোন তথ্য ডিজিটাল আকারে থাকে তখন আপনি সহজেই তা কপি করে অন্যের সাথে শেয়ার করতে পারেন। ডিজিটাল তথ্যের এই বৈশিষ্ট্যটি কিন্তু কোনভাবেই প্রচলিত কপিরাইট ব্যবস্থার সাথে খাপ খায় না। সেজন্যই অযৌক্তিক সফটওয়ার কপিরাইট কার্যকর করতে গিয়ে ক্রমবর্ধমান হারে বিভিন্ন নোংরা ও নির্মম পদ্ধতির আশ্রয় নিতে হচ্ছে। সফটওয়ার পাবলিশার্স অ্যাসোসিয়েশন (SPA) কর্তৃক গৃহীত চারটি পদক্ষেপ লক্ষ্য করুন -

পূর্বতন সোভিয়েত ইউনিয়নে উপরোক্ত এই চারটি পন্থাই প্রয়োগ করা হত। নিষিদ্ধ তথ্যের প্রতিলিপি তৈরি প্রতিরোধের উদ্দেশ্যে সেখানে প্রতিটি কপি করার যন্ত্রের সামনে একজন পাহারাদার থাকতো। এ কারণে তথ্য কপি করার কাজটি প্রত্যেককে করতে হত গোপনে এবং তারপর তা হাতে হাতে ছড়িয়ে দেওয়া হত একটি গোপন মুদ্রণ ও বিতরণ ব্যবস্থার (Samizdat) সাহায্যে। তবে এ দুটি ঘটনার মধ্যে অবশ্যই একটি পরিষ্কার পার্থক্য আছে: সোভিয়েত ইউনিয়নে তথ্যের প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করা হত রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এটি করার উদ্দেশ্য হল আর্থিক লাভ। তবে উদ্দেশ্যের ভিন্নতা নয় বরং উদ্দেশ্য সাধনে গৃহীত পদক্ষেপগুলোই কিন্তু আমাদের জীবনকে আক্রান্ত করে।

আমরা কিভাবে তথ্য ব্যবহার করবো তা নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা সফটওয়ার নির্মাতাদের হাতে প্রদানের পক্ষে তারা নিম্নলিখিত যুক্তিগুলো দিয়ে থাকেন:

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, সমাজের কী প্রয়োজন? সমাজ সত্যিকার অর্থে এমন তথ্য চায় যা প্রতিটি নাগরিকই সহজে পেতে পারে — উদাহরণস্বরূপ, এমন সফটওয়ার যা শুধু ব্যবহার করার মধ্যেই নাগরিকদেরকে সীমাবদ্ধ থাকতে হবে না বরং তারা সফটওয়ারটিকে বোঝা, ভুল সংশোধন করা, পরিবর্তন করা এবং আরো উন্নত করার কাজগুলোও করতে পারবে। কিন্তু সফটওয়ার নির্মাতাদের নিকট থেকে আমরা সাধারণত যা পাই তা যেন একটি তালাবদ্ধ বায়স্কোপের বাক্স - একে বোঝার বা পরিবর্তন করার কোন সুযোগই আমাদের নেই।

সমাজের আরো প্রয়োজন স্বাধীনতা। যখন কোন প্রোগ্রামের একজন মালিক থাকে তখন ব্যবহারকারীগণ তাদের নিজেদের জীবনের একটি অংশকে নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা হারায়।

আর সবচেয়ে বড় কথা হল, সমাজ জনগণের স্বেচ্ছাপ্রণোদিত পারস্পরিক সহযোগিতার মানসিকতাকে উত্‍সাহিত করতে চায়। যখন সফটওয়ারের মালিকগণ বলেন যে, স্বাভাবিক উপায়ে আমাদের প্রতিবেশীদের সাহায্য করা “বেআইনি” (Piracy) তখন তারা সমাজের নাগরিক চেতনাকেই দূষিত করেন।

একারণে ফ্রী সফটওয়ারের মূল বিষয়টি হল “ব্যবহারের স্বাধীনতা”, সফটওয়ারের মূল্য নয়।

সফটওয়ার মালিকগণ যে অর্থনৈতিক যুক্তি দেখান তা ভুল হলেও অর্থনৈতিক ব্যাপারটি সত্য। কিছু মানুষ প্রোগ্রাম লেখার আনন্দে বা এ কাজটির প্রতি তাদের ভালবাসার কারণেই ভাল ভাল প্রোগ্রাম লেখেন। কিন্তু আমরা যদি আরো সফটওয়ার চাই তবে আমাদেরকে তহবিল বাড়াতে হবে।

বিগত প্রায় দশ বছর ধরে ফ্রী সফটওয়ার ডেভেলপারগণ বিভিন্নভাবে তহবিল বাড়ানোর চেষ্টা করেছেন এবং কিছুটা সাফল্যও পেয়েছেন। কাউকে ধনী বানানোর কোন প্রয়োজন নেই; মার্কিন পরিবারসমূহের গড়পড়তা বার্ষিক আয় প্রায় ৩৫০০০ ডলার এবং এই অর্থ প্রোগ্রামিং অপেক্ষা কম তৃপ্তিদায়ক কাজের জন্যও বেশ আকর্ষণীয় পারিশ্রমিক।

একটি ফেলোশীপ পাওয়ার পূর্বে অনেক বছর যাবত্‍ নিজের লেখা ফ্রী সফটওয়ারগুলোতে বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের চাহিদামাফিক নানা রকম পরিবর্তন-পরিবর্ধন সাধন করে আমি জীবিকা নির্বাহ করতাম। এ ধরনের প্রতিটি পরিবর্ধন-ই সফটওয়ারের মূল সংস্করণের সাথে যোগ করা হত এবং পরবর্তীতে এভাবে সকলেই তা ব্যবহার করার সুযোগ পায়। গ্রাহকবৃন্দ আমাকে এর জন্য অর্থ প্রদান করত যেন আমার লেখা সফটওয়ারসমূহে তাদের ইচ্ছামাফিক বৈশিষ্ট্য যোগ করা হয়। প্রতিটি ক্ষেত্রেই যে সংশ্লিষ্ট সফটওয়ারটিতে এ সকল বৈশিষ্ট্য যোগ করা আমার ইচ্ছাতালিকায় সর্বাগ্রে ছিল তাও আমি মনে করতাম না।

কিছু ফ্রী সফটওয়ার ডেভেলপার বিভিন্ন ধরনের সেবার বিনিময়ে আয় করে থাকেন। যেমন - “সিগনাস সাপোর্ট” এর ৫০ জন কর্মীর মধ্যে ১৫% এর কাজ ফ্রী সফটওয়ার তৈরি করা - যেকোন সফটওয়ার নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে এটি একটি উল্লেখযোগ্য অংশ।

কিছু প্রতিষ্ঠান, যেমন - ইন্টেল, মটোরোলা, টেক্সাস ইন্সট্রুমেন্ট্‌স এবং অ্যানালগ ডিভাইসেস একত্রিত হয়ে প্রোগ্রামিং ভাষা “সি” এর ফ্রী গনুহ কম্পাইলার তৈরির জন্য অর্থ সরবরাহ করেছিল। 'অ্যাডা' প্রোগ্রামিং ভাষার ক্ষেত্রে অর্থ যোগান দিয়েছিল মার্কিন বিমান বাহিনী। মার্কিন বিমান বাহিনী বিশ্বাস করে যে, একটি উন্নতমানের কম্পাইলার পাওয়ার জন্য এটিই হবে সর্বাপেক্ষা ব্যায়সাশ্রয়ী পন্থা। [কিছুদিন পূর্বে এই প্রকল্পে বিমান বাহিনীর অর্থায়ন শেষ হয় এবং গনুহ 'অ্যাডা' কম্পাইলারটি এখন বিমানবাহিনীসহ সকলে ব্যবহার করছে। কম্পাইলারটি রক্ষণাবেক্ষণের কাজও করা হচ্ছে বাণিজ্যিকভাবে।]

এগুলো খুবই ক্ষুদ্র কিছু উদাহরণ মাত্র; ফ্রী সফটওয়ার আন্দোলনটিও এখনো ক্ষুদ্র ও বয়সে নবীন। কিন্তু এদেশে [মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র] শ্রোতাগোষ্ঠির সহায়তায় পরিচালিত বেতার কেন্দ্রের উপস্থিতি এটাই প্রমাণ করে যে, প্রতিটি ব্যবহারকারীকে অর্থ দিতে বাধ্য না করেও এ ধরনের বিরাট কর্মকাণ্ড পরিচালনা করা সম্ভব।

বর্তমানে একজন কম্পিউটার ব্যবহারকারী হিসেবে আপনি হয়ত একটি মালিকানাধীন (Proprietary) প্রোগ্রাম ব্যবহার করছেন। যখন আপনার বন্ধু এটি কপি করতে চাচ্ছে তখন তার অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করা ভুল হবে। কারণ পারস্পরিক সহযোগিতা কপিরাইট হতেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু এভাবে গোপনে পরস্পরকে সহযোগিতা করা কখনোই একটি ভাল সমাজ তৈরিতে সাহায্য করে না। প্রতিটি মানুষই মর্যাদা ওস্ম্মসম্মানের সাথে মাথা উঁচু করে বাঁচতে চায়; আর এর অর্থই হল মালিকানাধীন সফটওয়ারের প্রতি “না” বলা।

আপনার অধিকার আছে সর্বসমক্ষে স্বাধীনভাবে অন্যান্য সফটওয়ার ব্যবহারকারীদেরকে সাহায্য করার। আপনার অধিকার আছে সফটওয়ারের কর্মপদ্ধতি জানার এবং শিক্ষার্থীদের তা জানানোর। আপনার অধিকার আছে অচল সফটওয়ারটিকে সচল করার জন্য প্রিয় প্রোগ্রামারকে অর্থের বিনিময়ে নিয়োজিত করার।

আপনার অধিকার আছে সকল সফটওয়ারকেই ফ্রী সফটওয়াররূপে ব্যবহার করার।


এই রচনাটি Free Software, Free Society: The Selected Essays of Richard M. Stallman এ প্রকাশিত হয়েছে।

BACK TO TOP


 [FSF logo] “Our mission is to preserve, protect and promote the freedom to use, study, copy, modify, and redistribute computer software, and to defend the rights of Free Software users.”

The Free Software Foundation is the principal organizational sponsor of the GNU Operating System. Support GNU and the FSF by buying manuals and gear, joining the FSF as an associate member, or making a donation, either directly to the FSF or via Flattr.